ক্রেইগ ভেন্টার কোন কৃত্রিম প্রাণ তৈরী করেননি

এটা বেশ পুরোনো খবর। ক্রেইগ ভেন্টার নতুন কোন জীবিত কোষ তৈরী করেননি। তথাপি নাস্তিক ও বিবর্তনবাদীরা এখনও এই খবরকে তাদের ব্যাকিং দেয়ার জন্য ব্যাবহার করে যাচ্ছে। এর কারণ দুটো হতে পারে, এক তারা নিজেরাই যানে না যে প্রসেসটাতে কী করা হয়েছে অথবা তারা সাধারণ পাঠকদের এ বিষয়ে অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে নিজেদের ‘জ্ঞানের(?) অহংকার’ প্রদর্শন করে বেড়াচ্ছে।

আসুন আমরা দেখি ক্রেইগ ভেন্টার ও তার দল কী করলেন?

তারা একটি অলরেডি ‘লিভিং’ ব্যাকিটেরিয়া মাইকোপ্লাজমা মাইকয়েড এর কোষের নিউক্লিয়ার ম্যাটেরিয়াল এর ডাটা কালেক্ট করলেন। এবং সে অনুসারে (স্পেসিফিক পদ্ধতিতে) নিউক্লিউটাইড ক্যাসেট তৈরী করলেন। ইস্টের মাধ্যমে, ইস্টের অলরেডি বিল্ট ইন এসেমব্লি সিস্টেম, ব্যাবহার করে তাদেরকে এসেম্বল করলেন। এরপর সেই জিনোমটিকে ‘অলরেডি লিভিং’ ব্যাকটেরিয়া মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলাম এর মধ্যে ট্রান্সপ্ল্যান্ট করলেন। তবে তার আগে তারা একটি বুদ্ধি খাটালেন। তারা ক্যাপ্রিকোলাম এর নিজস্ব ‘রেস্ট্রিকশন এনজাইম’ এর জিনটাকে নক আউট করলেন। কেননা তারা জানতেন যে ব্যাকটেরিয়ার একটি বুদ্ধি আছে। তারা অন্য জেনেটিক ম্যাটেরিয়াল ঢোকালে সেটাকে তাদের রেস্ট্রিকশন এন্ডোনিউক্লিয়েজ এনজাইম দিয়ে কেটে হজম করে ফেলে।

এরপর যখন ঐ তথাকথিত ‘সিনথেটিক ডিএনএ’কে প্রবেশ করালেন, তখন
উক্ত ব্যাকটেরিয়া কোন প্রকার কথা না বলার সুযোগ পেয়ে সেটাকে নিজের করে নিল। (কেননা কথা বলার ব্যবস্থাতো আগেই বুদ্ধি করে দূর করে দেয়া হয়েছে।) প্রশ্ন হল তারা ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে নিউক্লিউটাইড-টাকে ঢোকালেন কিভাবে? আমার জানা মতে নিউক্লিয়িক এসিড দুভাবে ঢুকতে পারে। এক, যদি কোন ‘ফায’ ভাইরাস ব্যাকেটেরিয়াকে আক্রমণ করে নিজের জেনেটিক মেটেরিয়ালকে ব্যাকটেরিয়ার মেটেরিয়ালের সাথে যুক্ত করে লাইসোজেনিক phase এ চলে যায়। দুই, যদি ব্যাকটেরিয়ার বিল্ট ইন ‘ট্রান্সফরমেশন’ প্রসেস দ্বারা ‘নির্দিষ্ট কতগুলো শর্ত মেইনটেইন করা পরিবেশে’ দ্রবনের নিউক্লিয়িক এসিডকে আপন করে নেয়।

 

(সিনথেটিক কোষ সংশ্লেষ)

গুগলে একটু সার্চ দিয়ে কী পেলাম জানেন? নিচের Abstract-টি পড়ুন:

“As a step toward propagation of synthetic genomes, we completely replaced the genome of a bacterial cell with one from another species by transplanting a whole genome as naked DNA. Intact genomic DNA from Mycoplasma mycoides large colony (LC), virtually free of protein, was transplanted into Mycoplasma capricolum cells by ‘polyethylene glycol’–mediated ‘transformation’. Cells selected for tetracycline resistance, carried by the M. mycoides LC chromosome, contain the complete donor genome and are free of detectable recipient genomic sequences. These cells that result from genome transplantation are phenotypically identical to the M. mycoides LC donor strain as judged by several criteria.”

চলুন আমরা দেখি এরপর কী হল। ব্যাকটেরিয়া তার ‘নিজস্ব’ পূর্ব থেকেই বিদ্যমান আরএনএ পলিমারেজ ব্যবহার করে মেসেঞ্জার আরএনএ তৈরী করল। এরপর সেই মেসেঞ্জার আরএনএ উক্ত ব্যাকটেরিয়ার ‘নিজস্ব’রাইবোজম এর সাহায্যে প্রোটিন সংশ্লেষ করল। এখন উক্ত সংশ্লেষিত প্রোটিন কিন্তু মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকুলাম এর নয় বরং মাইকোপ্লাজমা মাইকয়েড এর প্রোটিন। (কারণ জিনগুলোত মাইকয়েডেরই) সুতরাং এর যে রেস্ট্রিকশন এন্ডোনিউক্লিয়েজ তা ‘রিসেপটর ব্যাকটেরিয়া’ মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলাম এর ডিএনএ কে ফরেইন মনে করে কেটে ফেলল। এবং তৈরী হল তথাকথিক ‘কৃত্রিম কোষ’।

পুরো প্রসেসটা করল একদল ‘ইন্টেলিজেন্ট সায়েন্টিস্ট’। পুরো প্রসেসটাকেই জ্ঞানের আলোকে অলরেডি ‘জীবিত’ ইস্ট ও ব্যাকেটেরিয়ার মধ্যে করা হল, তাদেরই বিল্ট ইন সিস্টেম ব্যাবহার করে। একটি Successful transplantation এর মাধ্যমে আমরা একটি Successful Genetic Engineering দেখতে পেলাম। এ ব্যাপারে নিচের মন্তব্যটি প্রণিধানযোগ্য।

Dr Peter Dearden, Director of Genetics Otago comments:

“This paper represents a very significant step forward in engineering life. Venter’s group have been able to put a fully synthetic genome into a bacterial cell and get it to act as that cell’s genome. The technical skill required to get this to work is immense, and is the culmination of a long series of experiments that pioneered the technology to do this, as well as developing ways to prove that it had been done.”

“The experiment raises an interesting question, has Venter and his team created life? The answer is NO. Venter’s team is relying on the information in a natural genome. While the DNA strand that makes up the genome is synthetic and made in the lab, the information it contains comes from a species of bacterium; and it is the information that is important in a genome. Also Venter’s team needs a bacterial cell, one without a genome, to put their synthetic genome into. This cell, currently, can only be made by a living organism.”

“However, while Venter and his team haven’t created life, they have carried out a remarkable feat, and put us one further step on the road to completely re-engineering organisms for biotechnological purposes.”

এবং আমরা আবারও এই সুনিয়ন্ত্রিত ইন্টেলিজেন্স এর ব্যাবহার দেখে মূল ইন্টেলিজেন্ট স্বত্ত্বা ‘আল্লাহ’ যিনি জীবিত ব্যাকটেরিয়ার প্রাণ দান করেছেন তার পরিচয় পেলাম। এবং জানতে পারলাম কিভাবে তিনি আমাদেরকে সকল সৃষ্টির সেরা বানিয়েছেন।

এছাড়াও এখানে আমরা দেখতে পেলাম যে উক্ত বিজ্ঞানীরা ‘মৃত ব্যাকটেরিয়া’ ব্যাবহার করলেন না। আর পৃথক ভাবে Cell memberane, microtubules, DNA, RNA, Ribosome, DNA polymerase, RNA polymerase, Golgi appearatus, Endolplasmic reticulum তৈরী করে তাদেরকে একত্রিত করে ‘জীবিত’ করা হলে যাকে আমরা ‘কৃত্রিম প্রাণ’ বলতে পারতাম তার ধরা-ছোয়ার কাছেও তো এই প্রাণ কে যেতে দেখলাম না!!!

রেফারেন্স:

১.http://www.jcvi.org/cms/press/press-releases/full-text/article/first-self-replicating-synthetic-bacterial-cell-constructed-by-j-craig-venter-institute-researcher/ 
২. http://www.sciencemediacentre.co.nz/2010/05/21/experts-on-craig-venters-synthetic-biology-breakthrough/ 
৩. Genome Transplantation in Bacteria: Changing One Species to Another.http://www.sciencemag.org/content/317/5838/632.abstract
৪. USMLE step 1 immunology and microbiology (Kaplan Series)
৫. Lippincot’s illustrated Reviews of Biochemistry

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s