সবুজে শ্যামলে সোনালী ফসলে                নব ঘন মেঘে বৃষ্টির জলে
নীলাভ গগনে গোলাপে কমলে                 সুমিষ্ট স্বাদ নানা রঙ ফলে
                            তোমাকে পেয়েছি খুঁজে,

খুঁজে যে পেয়েছি হারানো ছন্দ                কাটিয়ে ধকল কাটিয়ে দ্বন্দ্ব
কাটিয়ে দ্রোহ হটায়ে মন্দ                      হর্ষিত মন কি যে আনন্দ!
                           চিনেছি তোমাকে- বুঝে।

তোমাকে পেয়েছি গহীন কাননে              ঊষার আলোতে গোধূলি লগনে
কল কল জলে ঢেউয়ে কলতানে             কিচির মিচির পাখিদের গানে
                           জেনেছি তোমাকে আজি

তাইতো জীবনে করেছি লক্ষ্য                তোমার পথের হইতে রক্ষ
যা-ই ভাল তাই- খুলে এ বক্ষ                শিখিয়ে নিজেকে করব দক্ষ
                             জীবন রাখব বাজি।

আসুক শতধা বিদ্রূপ তীর
যুক্তির বানে হবে অস্থির
বিশ্বাসে পাবে মুক্তি পথিক
জিঞ্জির ভেঙ্গে মিথ্যা রাহি’র।

শীর্ণ বস্ত্রে জীর্ণ গাত্রে হুতাশন-সম দীপ্ত নেত্রে
উর্ধ্ধে উঠিয়ে প্রজ্ঞার শির-
নাস্তিকতার দেয়াল উপড়ে
শঠধূর্তের চোয়াল চাপড়ে
গ্রেনেডে বুলেটে বুক পেতে হব শহীদ অথবা গাজী,
তবু ধরণীর বুকে ‘ভণ্ড-বাঁদর’ দেখতে নই আজ রাজী।

………………………..
রক্ষ: রক্ষক
হুতাশন : আগুন
রাহি : অভাব
গ্রেনেডে বুলেটে: যুক্তিতে ব্যর্থ অবিশ্বাসীদের গালাগালি, মিথ্যাচার, ষড়যন্ত্র, জোর প্রয়োগ এবং পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষভাবে অস্ত্রের প্রয়োগ
ভণ্ড-বাদঁর : মুক্তমনা নামধারী ভন্ড যারা নিজেদের বাঁদর জাতীয় প্রাণীর বংশধর মনে করে
……………………..

Advertisements