মাইক্রো থেকে ম্যাক্রো ইভলুশন: আদৌ কি সম্ভব?

বিবর্তনবাদীরা বিবর্তনের উদাহরণ দিতে গিয়ে এমন কিছু উদাহরণ উপস্থাপন করেন যেগুলোকে মাইক্রোইভলুশন বলা যায়। কোন সন্দেহ নেই যে, ন্যাচারাল সিলেকশন এবং মিউটেশনের মধ্য দিয়ে মাইক্রোইভলুশন হয়। কিন্তু প্রশ্ন হল, এই দৃশ্যমান উদাহরণগুলো থেকে মাইক্রোইভলুশন ক্রমে ক্রমে দীর্ঘ সময়ের ব্যবধানে ম্যাক্রোইভলুশন করে- এই সিদ্ধান্তে আসা যাবে কি-না? চলুন, কয়েকটি উদাহরণের মাধ্যমে বিষয়টি দেখার চেষ্টা করি।

প্রথমেই জেনে নিই মাইক্রোইভলুশন এবং ম্যাক্রোইভলুশন কী? নাম থেকেই বোঝা যাচ্ছে আগেরটি ছোট ছোট পরিবর্তনকে বুঝায় এবং পরেরটি বড় পরিবর্তনকে বোঝায়। (সে হিসেবে আমরা এ প্রবন্ধে মাইক্রোইভলুশনকে ছোট-বিবর্তন এবং ম্যাক্রোইভলুশনকে বড়-বিবর্তন হিসেবে উল্লেখ করব।)

এককোষী ও বহুকোষী জীবের সাপেক্ষে এ দু’টো প্রক্রিয়ার উদাহরণে পার্থক্য আছে। এককোষী জীব যেমন ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসের ক্ষেত্রে ছোট-বিবর্তনের উদাহরণ হল: ব্যাকটেরিয়ায় ড্রাগ রেজিস্টেন্স তৈরী, এইচআইভি কিংবা ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেইন-এর আগমন। অন্যদিকে, এককোষী জীবে বড়-বিবর্তনের উদাহরণ হবে, ফ্ল্যাজেলামবিহীন ব্যাকটেরিয়াতে ফ্ল্যাজেলার আগমন, কিংবা একটি ব্যাকটেরিয়া থেকে আরেকটি প্রজাতির (তথা ভিন্ন বাহ্যিক গঠনের) ব্যাকটেরিয়া তৈরী।

প্রসঙ্গত, ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসের তথা এককোষেী জীব ও বহুকোষী জীব যাদের যৌন প্রজনন হয় না তাদের ক্ষেত্রে ‘প্রজাতি’ চেনা হয় গাঠনিক আকার, আকৃতি, কোষপ্রাচীরের আনবিক উপাদানের সাদৃশ্য ও গ্লাইকোক্যালিক্স এবং ফ্ল্যাজেলামের উপস্থিতি (ব্যাকটেরিয়ার ক্ষেত্রে) ইত্যাদি উপায়ে। বহুকোষী জীবের মধ্যে যাদের যৌন প্রজনন হয় তাদের ক্ষেত্রে ‘প্রজাতি’ চেনা হয় ‘যৌন প্রজনন’ করতে পারার যোগ্যতার ভিত্তিতে, অর্থাৎ উক্ত জীব সমগোত্রীয় যে জীবগুলোর সাথে যৌন প্রজনন করতে পারে তাদের নিয়ে তৈরী করে একটি ‘প্রজাতি’।

কিন্তু, বহুকোষী প্রাণীর ক্ষেত্রে ছোট-বিবর্তনের উদাহরণ হল: বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যে ক্ষুদ্র পরিবর্তন। যেমন: গায়ের রং এবং ডিজাইন, পশমের পরিমাণ, চোখের মনির রঙ, উচ্চতা, মাংসপেশীর তারতম্য, কণ্ঠ ও সুরের ধরণ ইত্যাদি। অন্যদিকে, বহুকোষী প্রাণীর ক্ষেত্রে বড়-বিবর্তনের উদাহরণ হল: স্পঞ্জ-এর ক্ষেত্রে নিডোসাইট নামক কোষের আগমন, সরিসৃপে পাখার আগমন, মাছের পাখনা থেকে পা-এর আগমন ইত্যাদি।

মজার ব্যপার হল, এককোষী জীব, যেমন: ব্যাকেটিরিয়ার ক্ষেত্রে মাইক্রোইভলুশন প্রজাতির পরিবর্তন করছে না, বরং নতুন স্ট্রেইন তৈরী করছে। অন্যদিকে, যৌন প্রজননের ভিত্তিতে প্রজাতির সংজ্ঞার ক্ষেত্রে ছোট-বিবর্তন দিয়েই প্রজাতি বা উপপ্রজাতি তৈরী হয়ে যাচ্ছে। কীভাবে? এই প্রশ্নের উত্তর দেয়া যায় বিবর্তনবাদীদের উপস্থাপিত প্রজাতি (তাদের মতে, আসলে হবে উপ-প্রজাতি) তৈরীর (যাকে স্পেশিয়েশন বলে) সবচেয়ে বড় উদাহরণ দিয়ে। ক্যালিফোর্নিয়ার সালামান্দার সার্কেল দিয়ে প্রজাতির (উপ-প্রজাতি) উদ্ভব ব্যাখ্যা দেয়া হয়।

সালামান্দার সার্কেলছবিসূত্র: http://rosarubicondior.blogspot.com/2012/01/ring-species-evolution-in-progress.html

উপরের ছবিটিতে আপনারা দেখতে পাচ্ছেন সালামান্দার প্রজাতি Ensatina eschschoitzi-এর ৭টি উপপ্রজাতি যুক্তরাস্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের প্রশান্ত মহাসাগর তীরবর্তী স্যান জাওকিন ভ্যালির আশেপাশে বাস করে। উপ-প্রজাতিগুলোর মূল পার্থক্য তাদের গায়ের রঙ-এর নকশা (প্যাটার্ন) এবং সম্ভবত ফেরোমোন। সালামান্দারের গায়ের রং-এর নকশা পরিবর্তন হয় হোমোলোগাস রিকম্বিনেশন-এর মাধ্যমে। সহজ কথায়, শুক্রাণু ও ডিম্বাণু তৈরী হওয়ার এক পর্যায়ে এক জোড়া ক্রোমোজামের মধ্যে ক্রসিংওভার নামক একটি ঘটনা ঘটে। এ প্রক্রিয়ায় জিনোমের কিছু সুনির্দিষ্ট অংশের আদান প্রদান এবং পুনঃবিন্যাস হয়। মনে রাখা দরকার, এ প্রক্রিয়াটি কিছু বৈশিষ্ট্যে ভ্যারিয়েশন তৈরী করতে প্রাণীর কোষে নির্মিত সুনিয়ন্ত্রিত একটি প্রক্রিয়া। যদিও রিকম্বিনেশন হচ্ছে র‍্যাণ্ডমভাবে, কিন্তু তা হচ্ছে একটি নিয়ন্ত্রিত সীমার মধ্যে।

বিবর্তনবাদীদের ইন্টারপ্রিটেশন অনুযায়ী, এভাবে সৃষ্ট ভ্যারিয়েশনের মাধ্যমে ভ্যালীর উত্তরে অবস্থিত Ensatina eschschoitzi picta উপ-প্রজাতিটি দক্ষিণ দিকে এসে এমন দুটো উপ-প্রজাতি Ensatina eschschoitzi klauberi এবং Ensatina eschschoitzi eschschoitzii–তে পরিণত হয়েছে, যারা পরস্পর যৌনক্রিয়ায় লিপ্ত হয় না। সালামান্দার প্রজাতি যৌনক্রিয়ার জন্য বিপরীত লিঙ্গ বাছাই করতে সাধারণত ফেরোমোন নামক শরীর থেকে নিঃসৃত বিশেষ গন্ধ উৎপাদনকারী পদার্থ ব্যবহার করে। (এছাড়া, কোন কোন প্রজাতি স্পর্শ এবং কোন কোন প্রজাতি দৃষ্টি-সম্বন্ধীয় সূত্র তথা ভিজুয়্যাল কিউ ব্যবহার করে থাকে)। সে হিসেবে Eschschoitzi klauberi এবং Ensatina eschschoitzi eschschoitzii উপ-প্রজাতি দুটোতে ক্রসিং ওভারের মধ্য দিয়ে রং এবং ফেরোমোনের যথেষ্ট পার্থক্য হয়ে যাওয়ায় তারা প্রজাতির সংজ্ঞানুযায়ী আলাদা প্রজাতিতে পরিণত হয়েছে। (আবার, এ-ও হতে পারে যে তাদের রিপ্রোডাকশন না করার কারণ আচরণগত।)

পাঠক, লক্ষ্য করে দেখুন, এখানে কার্যত ছোট-বিবর্তন সংঘটিত হল এবং ছোট বিবর্তনের মধ্য দিয়ে একটি প্রজাতি (উপ-প্রজাতি) দুটো প্রজাতিতে (উপ-প্রজাতিতে) পরিণত হল। অন্যদিকে, এককোষী জীবে নতুন প্রজাতি আসতে হলে এর মূল গঠনের মধ্যে পরিবর্তন আসতে হবে।

বিবর্তনবাদীরা ছোট-বিবর্তনের উপরোক্ত উদাহরণগুলো থেকে বলতে চাচ্ছে যে, মিলিয়ন বছরের ব্যবধানে এই ধরণের ছোট ছোট পরিবর্তনগুলো একত্রিত হয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন গঠনের বড়-বিবর্তন ঘটিয়েছে। কিন্তু আসলেই কি তা সম্ভব? আমরা উপরোক্ত আলোচনা থেকে দেখলাম, এককোষী জীব এবং বহুকোষী জীবের ক্ষেত্রে প্রজাতির সংজ্ঞা ভিন্ন হওয়ায় বিষয়টি পৃথকভাবে বিবেচনা করতে হবে। (আলোচনার সুবিধার্তে ধরে নিচ্ছি বহুকোষী জীব মাত্রই যৌন প্রজনন করে এবং ভাইরাস এককোষী জীবের মত আচরণ করে)।

পরবর্তী আলোচনায় যাওয়ার আগে পাঠকের জন্য একটি চিন্তার খোড়াক দেয়া যাক। ধরুন, আপনি সমুদ্রতীরে আছেন। তীরে হাটার সময় আপনি লক্ষ্য করলেন দূরে বালুর একটি স্তুপ তৈরী হয়েছে। আপনি স্বাভাবিকভাবেই চিন্তা করবেন ওখানে কেউ একজন বালুর স্তুপ জমা করে রেখেছে অথবা হঠাৎ কোন ঘূর্ণায়মান বায়ুর প্রবাহ ওদিকে দিয়ে যাওয়ায় স্তুপ তৈরী হয়েছে। আপনি ইচ্ছে করলে ভাবতে পারতেন যে, সমুদ্রের ঢেউ ধীরে ধীরে বালু জমা করতে করতে স্তুপ তৈরী করেছে। কিন্তু আপনি তা ভাবলেন না। কেন? কারণ, আপনি দেখছেন সমুদ্রের ঢেউ অনেকটা জায়গা জুড়ে আসছে। অতএব, ঢেউয়ের কারণে বালুর বিন্যাস হলে তীরে ঘেষে অনেকখানি জায়গা জুরে হতো। অতঃপর, আপনি যখন বালুর স্তুপটির আরও কাছে গেলেন, আপনি দেখতে পেলেন ওখানে বালুর স্তুপ নয় বরং বালু দিয়ে ঘরের মত তৈরী করা হয়েছে। এ অবস্থায় আপনার সিদ্ধান্ত পাকাপোক্ত হবে যে, এটি একজন দক্ষ মানুষ নির্মান করেছে, ঘুর্ণায়মান বায়ুর কারণে এটি তৈরী হয়নি। আপনাকে কেউ যদি জোড় করেও বলে যে কোটি কোটি বছরের ব্যবধানে আস্তে আস্তে এই ঘর তৈরী হয়েছে, তারপরও আপনি বিশ্বাস করবেন না। এমনকি, এর পক্ষে যদি পৃথিবীর সমস্ত বিজ্ঞানী এক হয়ে যায় তারপরও আপনি তার বিপরীতে একা থাকবেন। কারণ, বালুর ঘরটির বৈশিষ্ট্য হলো এটি অনিয়মিত (ইরেগুলার) আকৃতিসম্পন্ন এবং এই ইরেগুলারিটি এলোমেলো তথা র‍্যাণ্ডম নয়, সুনির্দিষ্ট ও সুশৃংখল। অর্থাৎ, সমুদ্রের ঢেউ এবং এ জাতীয় যে কোন জিনিস যা কতগুলো নির্দিষ্ট নিয়ম বা সূত্র মেনে চলে সেগুলো ক্রমে ক্রমে একটি নিয়মিত গঠন (Order)  তৈরী করতে পারে, কিন্তু অনিয়মিত সুশৃংখল গঠন (Organization) তৈরী করতে পারে না। আবার, র‍্যাণ্ডম প্রক্রিয়া হয়ত এলোমেলো জটিল গঠন (Complexity) তৈরী করতে পারে, কিন্তু অনিয়মিত সুশৃংখল ও জটিল গঠন (Organized Complexity) তৈরী করতে পারে না। যত সময়ই দেয়া হোক না কেন, সমুদ্র তীরে বালু জমে একা একা ঘর তৈরী হবে না। শীতলস্থানে পানি একা একা ঠাণ্ডা হয়ে বরফ হলেও কোটি বছরেও বরফের ভাস্কর্য তৈরী হবে না। ঠিক একই ভাবে, র‍্যাণ্ডম মিউটেশন ও ন্যাচারাল সিলেকশনের কাজ করার পদ্ধতি সম্পর্কে জানলেও স্পষ্ট হয়ে যায় যে, যত সময়ই অতিবাহিত হোক না কেন তা বড়-বিবর্তন ঘটাতে পারে না।

আমরা জানি, AIDS রোগের জন্য দায়ী HIV ভাইরাস এবং Flu রোগের জন্য দায়ী Influenza ভাইরাস এন্টিভাইরাল ঔষধ এবং মানুষের শরীরের প্রতিরক্ষাব্যবস্থাকে অতিক্রম করতে পারে এ ধরণের স্ট্রেইন দ্রুত তৈরী করে। বিবর্তনবাদীরা এ ঘটনাকে বিবর্তনের উদাহরণ হিসেবে প্রচার করেন। দুটি ভাইরাসের ক্ষেত্রেই মিউটেশনের মধ্য দিয়ে এ ধরণের পরিবর্তন আসে। কিন্তু লক্ষ্যণীয়, মিউটেশন হয় মূলত জিনোমের এমন একটি জায়গায় যা সংশ্লিষ্ট অনুটির গাঠনিক অখণ্ডতাকে নষ্ট করে না। এ ধরণের জায়গাকে বলে ‘হাইপার ভ্যারিয়েবল’ রিজিওন। যেমন: ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের বেলায় এ ধরণের মিউটেশন হয় হিমাগ্লুটিনিন নামক অণুর হাইপারভ্যারিয়েবল রিজিওনে। কিন্তু একই অণুর অন্যান্য রিজিওনে মিউটেশন হলে গাঠনিক অখণ্ডতা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ভাইরাস আক্রমন করতে পারে না, তথা অকার্যকর হয়ে পড়ে। Jewetz, Melnick ও Adelberg তাদের Medical Microbiology বইয়ে হিমাগ্লুটিনিন (HA)-এর গঠন সম্পর্কে বলছেন:

The HA molecule is folded into a complex structure. Each linked HA 1 and HA 2 dimer forms an elongated stalk capped by a large globule. The base of the stalk anchors it is the membrane. Five antigenic sites on the HA molecule exhibit extensive mutations. These sites occur at regions exposed on the surface of the structure, are apparently not essential to the moleule’s stability, and are involved  in viral neutralization. Other regions of the HA molecule are conserved in all isolates, presumably because they are necessary for the molecules to retain its structure and function. [১]

অর্থাৎ, মিউটেশন যদি গঠনের এমন জায়গায় হয় যেখানে মিউটেশন হলে ভাইরাস তার ইনফেকটিভিটি তথা আক্রমণ করার ক্ষমতা না হারিয়েও টিকে থাকতে পারে তখনই কেবল ভাইরাস উক্ত মিউটেশনের মধ্য দিয়ে রেজিসটেন্ট স্ট্রেইন তৈরী করতে পারবে। অথচ, আমরা উপরে জেনেছি ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়ার ক্ষেত্রে প্রজাতি সংজ্ঞায়িত হয় আকার, আকৃতি, গাঠনিক উপাদানের সাদৃশ্য দ্বারা। অর্থাৎ, ভাইরাসকে ভিন্ন প্রজাতিতে পরিণত করতে হলে তাকে ত্রিমাত্রিক গঠন পরিবর্তন করতে হবে। অন্যদিকে, যে মিউটেশনগুলো গঠনকে পরিবর্তন করে দেয় সেগুলো ভাইরাসকে অকেজো করে ফেলে। ফলে, ভাইরাস ভিন্ন আকৃতি তৈরী করার জন্য বাঁচতে পারবে না।

এইডস ভাইরাসের ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটে। এইডস ভাইরাসের জিনোমে পাঁচটি হাইপারভ্যারিয়েবল রিজিওন আছে। এ কারণেই দেখা যায়- র‍্যাণ্ডম মিউটেশন সব জায়গায় টোলারেট করতে পারলে, ভাইরাসে রিপ্রোডাকশন রেট বেশী হওয়ায় এইডস ভাইরাস এতদিনে পরিবর্তন হয়ে অন্য ভাইরাস হয়ে যেত, কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। বরং এর গাঠনিক অখণ্ডতা রক্ষা করে উচ্চমাত্রার ভিন্নতা তৈরীর ক্ষমতা (স্ট্রাকচারাল প্লাস্টিসিটি) থাকায় একটার পর একটা ড্রাগ রেজিসটেন্ট স্ট্রেইন তৈরী করে যাচ্ছে।

এইচআইভি গ্লাইকোপ্রোটিন-১২০

উপরোক্ত ছবিতে দেখা যাচ্ছে এইচআইভি ভাইরাসের গ্লাইকোপ্রোটিন-১২০ প্রোটিনের পাঁচটি হাইভ্যারিয়েবল রিজিওন (V দিয়ে চিহ্নিত) এবং ৫টি অপরিবর্তনশীল তথা কনস্টেন্ট রিজিওন (C দিয়ে চিহ্নিত)। ছবিসূত্র: http://jvi.asm.org/content/78/7/3279.full

এই উদাহরণ দুটো থেকে আমরা বুঝতে পারলাম, মিলিয়ন বছর সময় দিলেও ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস বা এইডস ভাইরাস অন্য ভাইরাসে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আমাদের সিদ্ধান্তকে আরো পোক্ত করে এমন ভাইরাসের উদাহরণ যেগুলোকে বৈশ্বিকভাবে নিশ্চিহ্ন ঘোষণা করা হয়েছে। ৮-ই মে ১৯৮০ সালে ওয়ার্ল্ড হেল্‌থ অর্গ্যানাইজেশন স্মল পক্সকে নিশ্চিহ্ন ঘোষণা করেছে। কিন্তু কিভাবে তা সম্ভব হল? উত্তর: স্মল পক্সের জিনোমে হাইপারভ্যারিবেল রিজিওন নামে কোন স্থান ছিল না। ফলে স্মল পক্সের বিপরীতে ভ্যাক্সিন প্রয়োগ করে একে বিলুপ্ত করে দেয়া গেছে। বিবর্তন একে রক্ষা করতে পারেনি। ঠিক একইভাবে ইয়েলো ফিবার, পোলিও, মিজেলস ইত্যাদি ভাইরাসের বিপরীতে একবার ভ্যাক্সিনেশন করলে পুরো জীবন তা প্রোটেকশন দিতে পারে। কারণ, এই ভাইরাসগুলোর জিনোমেও এমন কোন রিজিওন নেই, যা গাঠনিক একাগ্রতা ঠিক রেখে ইনফেকভিটি মেইনেটেইন করতে পারবে।

রেজিস্টেন্স ম্যাকানিজমসমূহ

ছবিসূত্র: http://textbookofbacteriology.net/resantimicrobial_3.html

ব্যাকেটেরিয়া বিভিন্নভাবে ড্রাগ রেজিসটেন্ট স্ট্রেইন তৈরী করতে পারে। সংক্ষেপে এগুলোকে তিনটি ভাগে ভাগ করা যায়: ১. ড্রাগটিকে কোষ থেকে বের করে দেয়া, ২. ড্রাগটিকে এনজাইমের মাধ্যমে নিষ্ক্রিয় করে দেয়া এবং ৩. ড্রাগটি কোষের যে স্থানে (তথা টার্গেটে) বন্ধন তৈরীর মাধ্যমে কাজ করে সে স্থানটিতে আকৃতির পরিবর্তন সাধন করা। প্রথম দুটি পদ্ধতি সংঘটিত করার জন্য যে এনজাইমগুলো কাজ করে, সেগুলোর প্রয়োজনীয় জেনেটিক তথ্য থাকে প্লাজমিডে। লক্ষ্যণীয়, প্লাজমিড ব্যাকটেরিয়ার মূল জেনেটিক এলিমেন্ট থেকে পৃথক এবং ব্যাকটেরিয়া গঠনে কোন প্রভাব না ফেলে কাজ করতে পারে। তৃতীয় পদ্ধতিটি সংঘটিত হয় মিউটেশনের মাধ্যমে। যদি মিউটেশনের ফলে টার্গেট এনজাইমে এমন ধরণের পরিবর্তন আসে যা এনজাইমের মূল কাজকে অক্ষত রেখে ওষুধের সুনির্দিষ্ট আনবিক লক্ষ্যস্থলে সামান্য পরিবর্তন আনে তাহলে ওষুধটি আর কাজ করতে পারে না। কিন্তু, মিউটেশন যদি মূল এনজাইমের গঠন ও কর্মক্ষমতাকে পুরোপুরি নষ্ট করে দেয় তাহলে ব্যাকটেরিয়াটি ধ্বংস হবে এবং ড্রাগ রেজিস্টেন্ট স্ট্রেইন তৈরী হবে না। ব্যাকটেরিয়াতে যেকোন এনজাইমের ফাংশন মূলত ‘অপটিমাম’ হয়। অর্থাৎ, এনজাইমটি খুব বেশী কাজও করে না আবার একেবারেই কম কাজও করে না। মিউটেশনের মাধ্যমে যে এনজাইমটি তৈরী হচ্ছে তা মূল এনজাইমটির মত কাজে দক্ষ হয় না। ফলে, ব্যাকটেরিয়ার ড্রাগ রেজিস্টেন্স স্ট্রেইন ওয়াইল্ড টাইপ স্ট্রেইন থেকে দুর্বল তথা কম ফিটনেস ফাংশন যুক্ত হয়।

প্রথম দুটো প্রক্রিয়ায় ব্যাকটেরিয়া যে রেজিসটেন্ট জিন ব্যবহার করছে তা মূলত এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ শুরু হওয়ার আগে থেকেই ছিল। ব্যাকটেরিয়ার একটি বিস্ময়কর বৈশিষ্ট্য হরাইজন্টাল জিন ট্রান্সফার। এ প্রক্রিয়ায় একটি ব্যাকটেরিয়া অন্য ব্যাকটেরিয়া থেকে জিনোম সংগ্রহ করতে পারে। এভাবেই মূলত উপরোক্ত দু’ধরণের রেজিসটেন্ট জিন এক ব্যাকটেরিয়া থেকে আরেক ব্যাকটেরিয়াতে ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু উক্ত জিনগুলো কীভাবে উদ্ভব হল, তা এই প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা করতে পারে না। অন্যদিকে, তৃতীয় প্রক্রিয়াটিকে প্রকৃত নিও-ডারউইনিয়ান প্রক্রিয়া বলা যায়। কারণ, মিউটেশনের মধ্য দিয়ে যে স্ট্রেইন তৈরী হচ্ছে, ওষুধ-যুক্ত পরিবেশে তা প্রাকৃতিকভাবে নির্বাচিত হয়। কিন্তু প্রশ্ন হল, বিবর্তনের এই উদাহরণ থেকে কি ব্যাকটেরিয়ার আকার, আকৃতি ও আনবিক গঠনে কোন পরিবর্তন ব্যাখ্যা করা যায়? উত্তর: না। কারণ, গাঠনিক আকৃতি পরিবর্তন হয়ে গেলে ব্যাকটেরিয়া তার গাঠনিক একাগ্রতা হারিয়ে ধ্বংস হয়ে যাবে। আর রিপ্রোডাকশন যদি না করতে পারে সে পরবর্তী প্রজন্মে পরিবর্তিত গঠন প্রবাহ করবে কীভাবে? নতুন প্রজাতি-ই বা গঠন করবে কীভাবে?

অর্থাৎ, ছোট-বিবর্তনের এই উদাহরণ থেকে বড়-বিবর্তনকে ইনফার করা যাচ্ছে না। তদুপরি, আমরা যদি ব্যাকটেরিয়া ফ্ল্যাজেলামের কথা চিন্তা করি, ফ্ল্যাজেলামে প্রায় চল্লিশটি ভিন্ন ধরণের প্রোটিন থাকে, তাহলে উপরোক্ত চল্লিশটি প্রোটিনের জিন সুনির্দিষ্টভাবে জিনোমে বিন্যস্ত হতে হবে। এই পারস্পরিক আন্তঃক্রিয়াশীল প্রোটিনযুক্ত গঠনটির একটি প্রোটিনের অবর্তমানে সে তার কাজ সঠিকভাবে করতে পারবে না। অর্থাৎ ফ্ল্যাজেলামকে কাজ করতে হলে পুরোপুরি একসাথে আসতে হবে। কিন্তু, উপরের মিউটেশনের উদাহরণ থেকে আমরা দেখেছি, মিউটেশন শুধু ইতোমধ্যে বিদ্যমান জেনেটিক তথ্যকে কিছুটা ওলটপালট করতে পারে। কিন্তু, নতুন জেনেটিক তথ্য যোগ করতে পারে না।

এছাড়াও, ব্যাকটেরিয়া যেহেতু খুব দ্রুত রিপ্রোডাকশন করতে পারে, সেহেতু ব্যাকটেরিয়াতে মিউটেশনের মধ্য দিয়ে পরিবর্তনগুলোও দ্রুত হবে। যদি প্রতি এক ঘন্টায় একটি রিপ্রোডাকশন হয়েছে ধরা হয়, এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৫ লক্ষ ব্যাকটেরিয়ার জেনারেশন তৈরী হয়েছে। মানুষের রিপ্রোডাকটিভ স্কেলে যা প্রায় ১০ মিলিয়ন বছরের ইকুইভ্যালেন্ট। অথচ, এই দীর্ঘ সময়ে ব্যাকটেরিয়াগুলোর প্রজাতি পরিবর্তন হয়নি। অর্থাৎ, নতুন প্রজাতি আসেনি। [২] রিচার্ড লেনস্কি ই. কোলাই ব্যাকটেরিয়া নিয়ে সবচেয়ে দীর্ঘ ইভলুশন এক্সপেরিমেন্ট চালিয়েছেন। ১৯৮৮ সাল থেকে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। ২০১২ সাল পর্যন্ত ৫০০০০ জেনারেশন পার হয়েছে। ই. কোলাই-এর বিভিন্ন স্ট্রেইন তৈরী হয়েছে কিন্তু ই. কোলাই প্রজাতি পরিবর্তিত হয়ে অন্য প্রজাতিতে পরিণত হয়নি। [৩]

সিকল সেল

ছবিসূত্র: http://geneed.nlm.nih.gov/topic_subtopic.php?tid=142&sid=149

বহুকোষী জীবের ক্ষেত্রে আমরা উপরে দেখেছি যে, প্রজাতির সংজ্ঞা গঠনের উপর নির্ভর করে না। ফলে, ছোট পরিবর্তনও প্রজাতি সৃষ্টি করতে পারে। একই সাথে আমরা এও দেখেছি যে, প্রজাতির জিনোমে যে ভ্যারিয়েশনগুলো হয়, তা ইতোমধ্যে বিদ্যমান তথ্যের সুনির্দিষ্ট পদ্ধতিতে জেনেটিক রিকম্বিনেশনের মধ্য দিয়ে। এছাড়াও মিউটেশনের মধ্য দিয়ে ভ্যারিয়েশন তৈরী হতে পারে। তবে সেটি হয় কোন একটি বৈশিষ্ট্য নষ্ট হওয়ার মাধ্যমে। যেমন: একটি নির্দিষ্ট অ্যামাইনো এসিড পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে মানুষের সাধারণ হিমোগ্লোবিন পরিবর্তন হয়ে হিমোগ্লোবিন এস তৈরী হয়। হিমোগ্লোবিন এস-এর বৈশিষ্ট্য হল এটি সুনির্দিষ্ট ট্রিগার পেলে কাঁচির মত আকৃতি ধারণ করে পাতিত হয় এবং সাথে উক্ত হিমোগ্লোবিনযুক্ত লোহিত রক্ত কণিকাগুলোর আকৃতিও কাঁচির মত হয়ে যায়। ফলে লোহিত রক্ত কণিকাগুলো অকেজো হয়ে পড়ে। মানবদেহের স্প্লিনের কাজ হল অকেজো রক্ত কণিকাকে গ্রহণ করে নষ্ট করে ফেলা। অন্যদিকে, ম্যালেরিয়া জীবাণু তার জীবনচক্রের একটি পর্যায় অতিক্রম করে লোহিত রক্ত কণিকায়। এমতাবস্থায় লোহিত রক্তকণিকাগুলো মারা যাওয়া অর্থ হলো ম্যালেরিয়ার জীবাণু মারা যাওয়া। এভাবে, যে সকল সিকল সেল এনেমিয়া ট্রেইটের রুগীদের জিনোমে হিমোগ্লোবিন এস-এর একটি অ্যালিলি থাকে তারা ম্যালেরিয়ার জীবাণুর বিরুদ্ধে এক ধরণের প্রাকৃতিক রেজিসটেন্স তৈরী করে এবং সাধারণ মানুষদের তুলনায় বেশী বেঁচে থাকে এবং রিপ্রোডাকশন করতে পারে। কিন্তু, স্পষ্টতই সিকল সেল এনেমিয়া পরিবর্তিত পরিবেশে রুগীদের সামান্য উপকার করতে পারলেও, সাধারণ মানুষদের তুলনায় এরা প্রকৃতপক্ষে কম যোগ্য (ফিট)।

ম্যালেরিয়ার জীবন চক্র

ছবিসূত্র: http://www.cddep.org/sites/cddep.org/files/malaria-life-cycle.jpg

তবে বহুকোষী জীবের ক্ষেত্রে বড়-বিবর্তন হতে হলে ব্যাখ্যা করতে হবে সম্পূর্ণ নতুন একটি বৈশিষ্ট্যের আগমন। যেমন: পাখির ডানা। পাখির ডানা আসতে গেলে আসতে হবে পাখির ডানার সুনির্দিষ্ট গঠন, যেমন: পালক; ডানার সাথে সংশ্লিষ্ট মাংসপেশী, রক্তসংবাহী নালী, নার্ভের জাল ও তার সাথে মস্তিষ্কের সুনির্দিষ্ট পরিবর্তন এবং পাখার গতি ও দিক নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রয়োজনীয় অ্যালগরিদম। স্বাভাবিকভাবেই, এগুলো আসার অর্থ হল জিনোমে সুনির্দিষ্ট ও সুশংখলভাবে নতুন জেনেটিক তথ্য আসা। সুতরাং, বহুকোষী জীবের ক্ষেত্রে ছোট-বিবর্তনের যে উদাহরণ আনা হচ্ছে, যত সময়ই অতিবাহিত হোক না কেন তা উপরোক্ত সুনির্দিষ্ট জেনেটিক তথ্যের সমাগম ব্যাখ্যা করতে পারে না। অর্থাৎ এই ধরণের ছোট-বিবর্তন কোটি বছর ধরে হলেও বড়-বিবর্তনকে ব্যাখ্যা করতে অক্ষম।

পাঠক, আমরা উপরের দীর্ঘ আলোচনার মধ্য দিয়ে কয়েকটি জিনিস বুঝতে পারলাম। এক, প্রজাতির সংজ্ঞা এককোষী জীব এবং বহুকোষী জীব যা যৌন প্রজনন করে তা-র ক্ষেত্রে ভিন্ন। দুই, ছোট-বিবর্তন এককোষী জীবে প্রজাতি তৈরী করে না বরং একই প্রজাতির বিভিন্ন স্ট্রেইন তৈরী করে, অন্যদিকে বহুকোষী জীবে উপ-প্রজাতি তৈরী করে। সে হিসেবে একজন বিবর্তনবাদী যদি বলে বিবর্তন প্রজাতি তৈরী করছে তাহলে তার বক্তব্য মিথ্যা হবে না, তবে অস্পষ্ট হবে। তিন, ছোট-বিবর্তন প্রকৃতপক্ষে বড়-বিবর্তনের পক্ষে কোন প্রমাণ উপস্থাপন করে না। ছোট-বিবর্তন শারীরিক গঠনের উপাদানে না হলে বড় পরিবর্তন আসার মাধ্যমে নতুন প্রজাতি আসার সম্ভাবনা নেই। কিন্তু, ছোট-বিবর্তন শারীরিক উপাদানে হলে প্রজাতির মারা যাওয়ার সম্ভাবনা বা কম-কর্মক্ষম প্রজাতি তৈরী হওয়ার সম্ভাবনা বেশী। অথচ, প্রাকৃতিক নির্বাচন শুধু অধিকতর যোগ্য প্রজাতিকে নির্বাচিত করে। সে হিসেবে কম-কর্মক্ষম প্রজাতি প্রতিকূল পরিবেশে আপাত সুবিধে দিলেও পুরো পপুলেশনের সাপেক্ষে কোন উত্তম ভ্যারিয়েশন প্রবাহ করতে পারছে না। এ কারণে, কোটি কোটি বছর পার হলেও এগুলো সম্পূর্ণ ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের আগমন ঘটাতে সক্ষম নয়।

সর্বশেষ কথা হল, বিবর্তনবাদী বিজ্ঞানীরা ছোট-বিবর্তনের উদাহরণ এনে ‘কোটি বছরের’ ধোঁয়াটে আবেদন দিয়ে বড়-বিবর্তনকে সত্য ধরে নিচ্ছেন এবং প্রচার করছেন। কিন্তু আদৌ এ ধরণের সিদ্ধান্ত নেয়ার সুযোগ আছে কি না সেই বিশ্লেষণে গেলে তারা ব্যাখ্যাকে স্পষ্ট করছেন না। বরং, বিবর্তনবাদকে সত্য ধরে নিয়ে করা রিসার্চ দেখিয়ে তারা তত্ত্বটিকে বৈজ্ঞানিক সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত রাখতে চাচ্ছেন। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন জাগে, এর পেছনের উদ্দেশ্যটি কি বৈজ্ঞানিক? না-কি আদর্শিক?

রেফারেন্স:

[১] Jewetz, Melnick, Adelberg; Medical Microbiology, 23rd edition, Chapter 39, Orthomyxoviruses; Page 540 [Emphasis Added]

[২] http://www.truthinscience.org.uk/tis2/index.php/evidence-for-evolution-mainmenu-65/175-development-of-biological-resistance.html

[৩] http://myxo.css.msu.edu/ecoli/overview.html

Advertisements

ফাইলোজেনেটিক ট্রি এবং বিবর্তনবাদ

আপনারা যারা বিবর্তনবাদীদের সাথে তর্কে লিপ্ত হয়েছেন বা নিজেরা ঘাঁটাঘাঁটি করেছেন তারা ‘ফাইলোজেনেটিক্স’ সম্পর্কে জেনে থাকবেন। আপনারা হয়তো বিভিন্ন সময় লক্ষ্য করে থাকবেন এমন কতগুলো ছবি, যেখানে আছে কয়েকটি সরলরেখার গাছ (Phylogenetic Tree) যেগুলোর একপ্রান্তে আছে কতগুলো প্রজাতি এবং আরেকপ্রান্তে সরলরেখাগুলো একটি মূল তৈরী করেছে। উক্ত মূলে আছে একটি সম্ভাব্য ‘কাল্পনিক’ প্রজাতি (Hypothetical Last Common Ancestor)।

বিবর্তনবাদীদের প্রদর্শিত ফাইলোজেনেটিক ট্রি দেখলে মনে হয় যেন তারা বিবর্তনের বিশাল এক প্রমাণ নিয়ে হাজির হয়েছে। বিশেষ করে একটি প্রজাতির সাথে আরেকটি প্রজাতির ‘বিবর্তনীয় সম্পর্ক’ (Evolutionary Relationship) এমনভাবে প্রকাশ করা হয় যেন তা বিবর্তনের ইতিহাস সুস্পষ্ট করে দিচ্ছে।

বিবর্তনবাদীদের একটি সাধারণ বৈশিষ্ট্য হলো বিজ্ঞানের মোড়কে প্রতারণা। তাদের এই স্ট্র্যাটেজি বুঝা আরও সহজ হয় যখন ফাইলোজেনেটিক্স বিষয়টির একটু গভীরে যাওয়া যায়। ফাইলোজেনেটিক্স তৈরী করতে যে পদ্ধতিগুলো ব্যবহার করা হয় সেগুলোর জটিলতা অনেক। জটিল এবং সাধারণের জন্য দূর্বোধ্য কতগুলো শব্দের ব্যবহার আছে। যেমন: Maximum Parsimony Analysis, Maximum Likelihood Analysis, Distance Based Methods (Bayesian Analysis, UPGMA etc) ইত্যাদি। কিন্তু এত জটিল জটিল শব্দের পিছনে আছে একটি সহজ ‘ধারণা’ (Assumption)।

(এবার একটু লক্ষ্য করে) উক্ত ধারণাটি হলো: ‘যে প্রজাতিগুলোর সাদৃশ্যপূর্ণ গঠন আছে (Homologous Structure) সে প্রজাতিগুলো বিবর্তনীয়ভাবে পরস্পরের নিকটবর্তী।’ হ্যাঁ পাঠক ভাল মত খেয়াল না করলে হয়ত আপনি বিষয়টি ধরতে পারবেন না। বিবর্তনবাদীরা এখানে ‘সাদৃশ্যপূর্ণ গঠন’কে বিবর্তনের প্রমাণ হিসেবে ধরে নিয়েছেন!! অথচ, সাদৃশ্যপূর্ণ গঠন কখনই বিবর্তনবাদের প্রমাণ নয়। কারণ সাদৃশ্যপূর্ণ গঠনের আরেকটি বিকল্প ব্যাখ্যাকে তারা ইচ্ছা করেই এড়িয়ে গেছেন। সেটি হলো ‘Common Design’। হ্যাঁ, এই বিকল্প ব্যাখ্যাকে বাতিল করতে হলে দেখাতে হবে জেনেটিক লেভেলে বিবর্তনের ম্যাকানিজমগুলো কাজ করে। অর্থাৎ দেখাতে হবে যে, ‘মিউটেশন’ এমন কিছু ভ্যারিয়েশন তৈরী করতে পারে ধাপে ধাপে যেগুলো নতুন কার্যকরী প্রোটিনসমষ্টি তৈরী করতে সক্ষম, তথা বাহ্যিকভাবে নতুন ‘বডি প্ল্যান’ তৈরী করতে সক্ষম। অথবা, দেখাতে হবে বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে নির্মিত বিভিন্ন ফাইলোজেনেটিক ট্রিগুলো সংগতিপূর্ণ (Congruent)।

যারা মিউটেশন সম্পর্কে পড়ালেখা করেছেন তারা জেনে থাকবেন মিউটেশন ধাপে ধাপে নতুন ও সম্পূর্ণ ভিন্ন ফাংশনের প্রোটিন তৈরী করতে পারে না। [১] বরং একটি এনজাইমকে (প্রোটিন) ভিন্ন ফাংশনের এনজাইমে পরিবর্তন হতে হলে অনেকগুলো মিউটেশন একসাথে হতে হবে। ডগলাস এক্স ও এন গজার দেখিয়েছেন যে, একটি ফাংশনাল এনজাইমকে আরেকটি ফাংশনাল এনজাইমে পরিণত করতে ৫টি বা তার অধিক সাইমালটেনিয়াস ও স্পেসিফিক মিউটেশন লাগবে। [২] মাইকেল বিহের স্টাডি থেকে আমরা জানি, একই সাথে চারটির বেশী মিউটেশন প্রয়োজন হলে এবং তা র‍্যাণ্ডমলি হতে হলে পৃথিবীর বয়স সীমা পার হয়ে যায়। [৩] কিন্তু কোষের নতুন কোন কাজ একটি এনজাইমের উপরতো নির্ভর করেই না, বরং অনেকগুলো এনজাইমের সামগ্রিক সহযোগিতায় একটি নতুন ফাংশন তৈরী হয়। এরূপ অনেকগুলো নতুন ফাংশনযুক্ত কোষের সমন্বয়ে তৈরী হয় নতুন ফাংশন বা বৈশিষ্ট্য-যুক্ত টিস্যু। আর এ ধরণের টিস্যুগুলোর পারস্পরিক সুনির্দিষ্ট ও পরিকল্পিত যোগাযোগের মাধ্যমেই শুধু হবে রিঅর্গ্যানাইজেনশ, এবং রিঅর্গ্যানাইজেশন ছাড়া নতুন বডি প্ল্যান আসা সম্ভব নয়। এমনকি অন্যান্য জেনেটিক ম্যাকানিজমগুলোও প্রজাতিতে ইতোমধ্যে বিদ্যমান জেনেটিক তথ্য ওলট-পালট করা ছাড়া নতুন কার্যকরী তথ্য যোগ করতে অপারগ।

যাই হোক, বিবর্তনবাদীরা ফাইলোজেনেটিক এনালাইসিসে কি করে তা বুঝার জন্য ‘ম্যাক্সিমাম পার্সিমনি এনালাইসিস’ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা যেতে পারে। ধরুন আপনি তিনটি প্রাণী ‘ক’, ‘খ’ এবং ‘গ’ নিয়ে তুলনা করবেন। এক্ষেত্রে প্রথমে আপনাকে ‘ক’, ‘খ’ ও ‘গ’ প্রাণীত্রয়ের কিছু বৈশিষ্ট্য ঠিক করতে হবে। ধরি, একটি বৈশিষ্ট্য প্রত্যেকটি প্রাণীর-ই আছে সেটিকে দেই নাম্বার ‘১’। অতঃপর, আরেকটি বৈশিষ্ট্য শুধু ‘খ’ এবং ‘গ’-এর আছে, এদের দেই নাম্বার ‘২’। আরেকটি বৈশিষ্ট্য আছে শুধু ‘গ’-এর নাম্বার দেই ‘৩’। এখন আমাদের কাজ হবে প্রাণী ‘ঘ’ এর সাথে এদের তুলনা করা। প্রাণী ‘ঘ’ হলো আমাদের গ্রুপের বাইরের (Outgroup) প্রাণী। ‘ঘ’-র তিনটি বৈশিষ্ট্যের কোনটিই নেই। এভাবে চিহ্নায়িত করে আমরা নিচের ছকটি পাব:

১        ২        ৩

ঘ        ০        ০        ০

ক       ১        ০        ০

খ        ১        ১        ০

গ        ১        ১        ১

সুতরাং আমাদের ফাইলোজেনেটিক ‘ট্রি’ হবে এরকম:

 

অর্থাৎ, আমাদের ফাইলোজেনেটিক ট্রি অনুসারে, ‘ক’, ‘খ’ এবং ‘গ’ একটি ‘হাইপোথিটিক্যাল কমন এনসেস্টর’ থেকে এসেছে। এরপর ‘ক’ এবং ‘খ’ ও ‘গ’-এর বিবর্তনীয় লিনিয়েজ ভাগ হয়ে গেছে। ‘খ’ এবং ‘গ’-এর হাইপোথিটিক্যাল কমন এনসেস্টর থেকে পরবর্তীতে ‘খ’ এবং ‘গ’ ভাগ হয়ে গেছে। জ্বি ভাই/বোন, অবাক হবেন না। এভাবেই তৈরী হয় ফাইলোজেনেটিক ট্রি। আর গাছের প্রতিটি শাখার গোড়ায় লাগিয়ে দেয়া হয় ‘হাইপোথিটিক্যাল কমন এনসেস্টর’। [৪]

 

 

এবার উপরের ছবিটি দেখুন। [৫] এটাকে বলে ‘Consensus Phylogeni of All Life’। লক্ষ্য করে দেখুন, রেখাগুলো যেখানে বিভক্ত হয়েছে, সেই জায়গাগুলোর হাইপোথিটিকাল প্রজাতিগুলোর ফসিল কিন্তু এখনও কাল্পনিক পর্যায়েই আছে।

মজার ব্যাপার হলো, এই অধিকাংশ ‘হাইপোথিটিক্যাল কমন এনসেস্টর’দের কোন ফসিল এভিডেন্স নেই। একটি বিষয় ভেবে দেখুন, আপনি যদি এরকম একটি ফাইলোজেনেটিক ট্রি নিয়ে চিন্তা করেন তাহলে আপনি আশা করবেন ফসিল এভিডেন্সে যতই আমরা পিছনের দিকে যাব ততই এমন কতগুলো ফসিল পাবো যেগুলোর আকার আকৃতির সাথে বর্তমান কোন প্রাণীর আকার আকৃতির মিল নেই। অন্য কথায় আমরা বর্তমানে যে জীবগুলো পাচ্ছি সেগুলোর বৈশিষ্ট্য বিভিন্ন (হেটারোজেনাস), কিন্তু পেছনের দিকে গেলে ফসিলে আমরা এমন কতগুলো জীব পাব যেগুলোতে হয় উক্ত বৈশিষ্ট্যগুলোর সমন্বয় আছে অথবা তারা একই ধরণের বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন (হোমজেনাস)। অর্থাৎ জিওলজিকাল হিস্ট্রির প্রথম দিকে আমরা কখনই জীবজগতের ‘পর্ব’ (Phylum) গুলোকে আলাদা করতে পারবো না, বরং যতই সময় যাবে পর্বগুলো তাদের পৃথক বৈশিষ্ট্যসহ স্পষ্ট হয়ে উঠতে শুরু করবে। কিন্তু ক্যামব্রিয়ান পিরিয়ডে মাত্র ৩০ মিলিয়ন বছরের ব্যবধানে (৫৩০ মিলিয়ন বছর পূর্ব থেকে ৫০০ মিলিয়ন বছর পূর্ব) প্রায় ২৫টি পর্ব পাওয়া যায়। জিওলজিক্যাল পিরিয়ডে এটি খুবই সংক্ষিপ্ত সময়।

মলিকিউলার ফাইলোজেনি-ও অনেকটা উপরোক্ত নিয়মে করা হয়। এক্ষেত্রে, দুটো প্রজাতির ‘হোমোলোগাস’ প্রোটিনের এমাইনো এসিড সিকোয়েন্স অথবা তাদের জিন সিকোয়েন্স নিয়ে এনালাইসিস করে ইভলুশনারী ট্রি তৈরী করা হয়। যেমন ধরুন বিভিন্ন প্রজাতির থেকে ‘হিমোগ্লোবিন’-এর এমাইনো এসিড সিকোয়েন্স নিয়ে ফাইলোজেনেটিক স্টাডি করা হলো। এক্ষেত্রে উক্ত প্রজাতিগুলো কবে পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছে এবং তাদের ‘হাইপোথেটিকাল লাস্ট কমন এনসেস্টর’ কত বছর আগে জীবিত ছিলো এগুলোর একটি হিসাব বেরিয়ে আসে। মজার বিষয় হলো উক্ত প্রজাতিগুলো থেকেই যদি অন্য একটি এনজাইম (যেমন: সাইট্রোক্রোম সি) নিয়ে স্টাডি করা হয় তাহলে দেখা যায় তাদের ফাইলোজেনেটিক ট্রি একই ধরণের ফলাফল বা সময়সীমা দেখাচ্ছে না। একইভাবে, প্রজাতির বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য নিয়ে যে ফাইলোজেনেটিক ট্রিগুলো তৈরী করা হয়েছে সেক্ষেত্রেও দেখা গেছে ভিন্ন ভিন্ন ফাইলোজেনেটিক ট্রি-র মধ্যে সামঞ্জস্য নেই। অথচ, বিবর্তনের মাধ্যমে নতুন ‘বডি প্ল্যান’ তৈরী হয়ে থাকলে প্রজাতির যে বৈশিষ্ট্য নিয়েই ফাইলোজেনেটিক ট্রি করা হোক না কেন, সেগুলো একই ধরণের বা সামঞ্জস্যপূর্ণ চিত্র দেখানোর কথা, একই সময়ে গিয়ে লাস্ট কমন এনসেস্টরকে নির্দেশ করার কথা। কিন্তু বাস্তবে তা পাওয়া যায় না। স্টিফেন সি. মেয়ার তার বই ‘Darwin’s Doubt‘-এ বিষয়টি অত্যন্ত সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করে দেখিয়েছেন। [৬]

অতএব পাঠক, বুঝে নিন আপনার সামনে যদি ফাইলোজেনি নামক কোন শব্দ প্রকাশ করা হয়, অবুঝের মত বিভ্রান্ত হবার কিছু নেই। ফাইলোজেনী ডারউইনবাদকে প্রমাণ করে না।

সংযোজন(১২/০৫/২০১৪): পাঠক, প্রথমোক্ত ছবিটার দিকে আবার লক্ষ্য করুন। ছবিটা থেকে ইচ্ছা করলে এভাবেও চিন্তা করার সুযোগ আছে যে, যদিও আমরা চূড়ান্ত ‘লাস্ট কমন এনসেস্টর’ সম্পর্কে জানি না, কিন্তু ‘ক’, ‘খ’ এবং ‘গ’ এর লাস্ট কমন এনসেস্টর হিসেবে ‘ক’-কে বিবেচনা করতে পারি। সেক্ষেত্রে এভাবে ব্যাখ্যা দেয়া যায় যে,  কোন এক সময় ‘ক’ প্রজাতির পপুলেশনের একটি অংশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বা পৃথক হয়ে গেছে, এরপর উক্ত প্রজাতির মধ্যে সৃষ্ট ভ্যারিয়েশনের মধ্য দিয়ে বৈশিষ্ট্য ‘২’-এর আবির্ভাব ঘটেছে এবং ‘খ’ প্রজাতি তৈরী হয়েছে, যা প্রাকৃতিকভাবে নির্বাচিত হয়ে টিকে গেছে। ঠিক একই ভাবে ‘খ’ থেকে একটি সাবপপুলেশন ‘গ’-তে পরিণত হয়েছে। সমস্যা হলো, এ ধরনের ‘ট্রি’ কনস্ট্রাকশনে বৈশিষ্ট্য ‘১’ ‘২’ ও ‘৩’-এর আবির্ভাবকে ‘বিবর্তনের’ ফসল হিসেবে ধরে নেয়া হয়েছে। কিন্তু উপরে আমরা দেখেছি র‍্যানডম আনগাইডেড বিবর্তন আনবিক পর্যায়েই নতুন ফাংশনযুক্ত এনজাইম বা প্রোটিন তৈরী করতে অক্ষম। সুতরাং, নতুন একটি বৈশিষ্ট্য (যেমন: পাখির ডানার মাংসপেশী, নার্ভ ইত্যাদি)তৈরী করতে যে পরিমান নতুন সুসংগঠিত তথ্য জিনোমে সুশৃংখলভাবে প্রবেশ করাতে হবে তা আনগাইডেড বিবর্তনীয় প্রক্রিয়ায় সম্ভব নয়।

এবার আমরা দ্বিতীয় ছবিটা পুনরায় দেখি। ছবি অনুযায়ী, বহুকোষী প্রাণী স্পঞ্জ-এর একটি সাবপপুলেশনে প্রথম সুগঠিত ‘অঙ্গ’ হিসেবে স্নায়ুতন্ত্র এবং/অথবা সংবহনতন্ত্র (আদিমপ্রকৃতির) আবির্ভূত হয়ে অন্যান্য জীবের বিবর্তন হয়। এছাড়াও স্পঞ্জের পরেই সুগঠিত দৈহিক আকৃতি ও বডি সিমেট্রির আবির্ভাব হয়। আমরা জানি স্পঞ্জ পরিফেরা পর্বের অন্তর্ভূক্ত এবং এর কাছাকাছি পর্ব হল নিডারিয়া (জেলি ফিস, হাইড্রা, কোরাল, সামুদ্রিক এনেমোন) । পরিফেরা ও নিডারিয়ার পর্বের দুটো সরলতম প্রজাতির মধ্যেও কিছু মৌলিক পার্থক্য আছে। যেমন: নিডারিয়া পর্বের বৈশিষ্ট্য হল ‘নিডোসাইট’ কোষের উপস্থিতি, সরলতম স্নায়ু জাল, মুখবিবরের অবস্থান, সুনির্দিষ্ট শারীরিক আকৃতি(Body Shape)ইত্যাদি। আবার পরিফেরা পর্বের টানেল সিস্টেম নিডারিয়াতে নেই। সুতরাং একটি সরলতম স্পঞ্জকেও বিবর্তিত হয়ে নিডারিয়াভুক্ত প্রাণীতে পরিনত হতে হলে জিনোমে উপরোক্ত বৈশিষ্ট্যগুলোর সুবিন্যস্ত আবির্ভাব ঘটাতে হবে। মজার ব্যপার হলো ‘হোক্স’ জিন ক্লাস্টার যা এমব্রায়োনিক ডেভেলপমেন্টের সময় শারীরিক আকৃতি তৈরী নিয়ন্ত্রণ করে, তার প্রথম আবির্ভাব নিডারিয়াতে। কোন র‍্যানডম মিউটেশনের মধ্য দিয়ে যে এ ধরনের জেনোমিক ইনফরমেশন ইনফিউশন সম্ভব নয়, তা বলাই বাহুল্য।

চলুন, আমরা জোনাথান বার্ডের সাথে স্পঞ্জ (পরিফেরা) এবং কোরাল (নিডারিয়া)-এর বৈচিত্রপূর্ণ জগতে ঘুরে আসি।

স্পঞ্জ

https://www.youtube.com/watch?v=m8a0oNsDEx8

কোরাল

https://www.youtube.com/watch?v=EO_Zc5XH6e0

 

রেফারেন্স:

[১] Behe MJ. Experimental Evolution, Loss-of-function Mutations, and “The First Rule of Adaptive Evolution”. The Quarterly Review of Biology. 2010 December (Cited 2014 May 11]; 85(4):419-45. Available at: http://www.lehigh.edu/~inbios/pdf/Behe/QRB_paper.pdf

[২] Gauger, A., Axe, D.. The Evolutionary Accessibility of New Enzymes Functions: A Case Study from the Biotin Pathway. BIO-Complexity, North America, 2011, apr. 2011. Available at: http://bio-complexity.org/ojs/index.php/main/article/view/BIO-C.2011.1.

[৩] Michael J. Behe, Edge of Evolution, FreePress, NY, 2008, p-142. 

[৪] Greg Krukonis, Tracy Barr; Phylogenetics: Reconstructing the Tree of Life; Evolution for Dummies; Wiley Publishing Inc. Indianapolis, Indiana.

[৫] ছবিসূত্র: http://www.talkorigins.org/faqs/comdesc/phylo.htm

[৬] Stephen C. Meyer, Darwin’s Doubt, HarperCollins publishers, Seattle, WA, 2013, p-130-131.

মস্তিষ্কের আকার ও বিবর্তন

মানবজাতির ইতিহাসে মিথ্যাচার, প্রতারণা ও তথ্যগোপনের অসংখ্য উদাহরণ পাওয়া যায়। তবে বর্তমান সময়ের চেয়ে বেশী সমগ্র ইতিহাসকে একত্রিত করলেও পাওয়া যাবে না। শুধুমাত্র বিজ্ঞানেই বিবর্তনবাদের ভূত যে পরিমাণ মিথ্যাচার, প্রতারণা ও তথ্যগোপন করেছে এবং করে চলেছে তা-ই বর্ণনাতীত।

বিবর্তনবাদীরা এপ থেকে মানুষ আসার দাবী করতে গিয়ে তাদের ব্রেইনের আকারের পার্থক্যকে হাইলাইট করে। বিষয়টি যেহেতু সাধারণ মানুষের জন্য সহজবোধ্য নয় সেহেতু ব্রেইনের আকারের পার্থক্য দিয়ে ধোঁকা দেয়াটা সহজ। কিন্তু যখন থেকে মানুষের নিউরোএনাটমি বুঝতে শুরু করেছি, তখন থেকেই বিষয়টিতে আমার খটকা লেগেছে।

কারণ, ব্রেইনের পার্থক্যটা হয় মূলত অর্গ্যানাইজেশনে, আকারে নয়। [১] হ্যাঁ, আকার বড় হয় ততটুকু, যতটুকু অর্গ্যানাইজেশন পরিবর্তন করতে গিয়ে। কিন্ত আকার ছোট রেখেও অর্গ্যানাইজেশন এক রাখলে বিচারবুদ্ধিও একই থাকে। মানুষের ব্রেইনের আকার সর্বনিম্ন ৮০০ সিসি থেকে ২২০০ সিসি পর্যন্ত হতে পারে। [২] তার মানে এই না যে ৮০০ সিসি আকারের মাথার বুদ্ধি কম।

মানুষের সাথে শিম্পাঞ্জির ব্রেইনের মূল পার্থক্য ফ্রন্টালকর্টেক্স নামক ব্রেইনের অগ্রভাগের অংশে স্পষ্ট। কিন্তু শুধু ফ্রন্টালকর্টেক্সের আকার যদি বাড়িয়ে দেয়া হয় তাহলেই কি এপ জাতীয় প্রাণী মানুষে পরিণত হবে? না। যারা এই ধরণের দাবী করেন তারা ‘তথ্যগোপন’ করেন বা এড়িয়ে যান।

ফ্রন্টাল কর্টেক্স বাড়িয়ে দেয়ার কথা বলে তারা ফ্রন্টাল কর্টেক্সের সাথে ব্রেইনের অন্যান্য অংশের সুসংগঠিত যোগাযোগগুলোর কথা বলেন না। ফ্রন্টাল কর্টেক্স মানুষের ব্রেইনের কমপ্লেক্স ফাংশন করতে গিয়ে, প্রাইমারী ও সাপ্লিমেন্টারী মোটর এরিয়া ও সেনসরি এরিয়া, ভিজুয়েল কর্টেক্স, অডিটরি কর্টেক্স, ভারনিক্স এরিয়া, লিম্বিক সিস্টেম, কর্পাস স্ট্রায়েটাম,ডায়েনসেফালন এবং পেছনের ব্রেইনের সাথে নিবিড় ভাবে সম্পর্কযুক্ত। সুতরাং ব্রেইনের এই জটিল গঠন তৈরী করতে যে জটিল রিঅর্গ্যানাইজেশন প্রয়োজন, অনিয়ন্ত্রিত (unguided) বিবর্তন ব্যাখ্যা করতে গেলে এগুলোর ব্যাখ্যা করতে হবে।

আর বিবর্তনবাদীদের দাবী অনুসারে আনগাইডেড বিবর্তন হয় ‘র‍্যাণ্ডম মিউটেশন’ এর ফলে যদি কোন ‘নতুন ফাংশনাল ভ্যারিয়েশন’ তৈরী হয় তার ‘প্রাকৃতিক নির্বাচন’ এর মধ্য দিয়ে। সমস্যা হলো, প্রাণীদেহের অধিকাংশ ফাংশনই ‘জিন’-এর সাথে ‘ওয়ান টু ওয়ান’ সম্পর্কযুক্ত না। অর্থাৎ একটি জিন একটি ফাংশন নিয়ন্ত্রণ করছে (মনোজেনিক) এ রকম নয়। বরং অনেকগুলো জিন একত্রে একটি বৈশিষ্ট্যের বহিঃপ্রকাশ ঘটায় (পলিজেনিক); সুতরাং উপরোক্ত দাবী ব্যাখ্যা করতে গেলে অসংখ্য Simultaneous এবং Exact মিউটেশন একসঙ্গে হতে হবে। তদুপরি এমব্রায়ো থেকে ডেভেলপমেন্টের সময় জেনেটিক সুইচ (ডিএনএ মিথাইলেশন প্যাটার্ন)-ও বিভিন্ন হওয়ায় ব্যাখ্যা করতে হবে এপিজেনেটিক রিঅর্গ্যানাইজেশন। [৩]

অথচ এরিক ডেভিডসনের ডেভেলপমেন্টাল জিন রেগুলেটরী নেটওয়ার্কে (dGRN) মিউটেশন নিয়ে পরীক্ষা থেকে আমরা জানি এগুলো হাইলি কনজার্ভড, অর্থাৎ সামান্য মিউটেশন মারাত্মক জেনেটিক ডিফেক্ট তৈরী করে। [৪] অন্যদিকে মাইকেল বিহের স্টাডি থেকে আমরা জানি, একই সাথে চারটির বেশী মিউটেশন প্রয়োজন হলে এবং তা র‍্যাণ্ডমলি হতে হলে পৃথিবীর বয়স সীমা পার হয়ে যায়। [৫] আবার ডগলাস এক্স ও এন গজার দেখিয়েছেন একটি ফাংশনাল এনজাইমকে আরেকটি ফাংশনাল এনজাইমে পরিণত করতে ৫টি বা তার অধিক সাইমালটেনিয়াস ও স্পেসিফিক মিউটেশন লাগবে। [৬] কিন্তু কোষের নতুন কোন কাজ একটি এনজাইমের উপরতো নির্ভর করে না। অনেকগুলো এনজাইমের সামগ্রিক সহযোগিতায় একটি নতুন ফাংশন তৈরী হয়। এরূপ অনেকগুলো নতুন ফাংশনযুক্ত কোষের সমন্বয়ে তৈরী হয় নতুন ফাংশন বা বৈশিষ্ট্য-যুক্ত টিস্যু। আর এ ধরণের টিস্যুগুলোর পারস্পরিক সুনির্দিষ্ট ও পরিকল্পিত যোগাযোগের মাধ্যমেই শুধু হবে রিঅর্গ্যানাইজেনশ।

সুতরাং, পাঠক বুঝে নিন, বিবর্তনবাদীদের দাবী কোন্‌ পর্যায়ের ‘বিজ্ঞান(!)’।

রেফারেন্স:

[১] Primate Brain Organization, Not Size, Key To Human Intelligence, Study Sayshttp://www.huffingtonpost.com/2013/03/29/primate-brain-organization-human_n_2971873.html

[২] Casey Luskin, Human origins and the Fossil Record, Science and Human Origin,Discovery Institute Press, Seattle, WA, p-71.

[৩] Brian Thomas, Stark Differences Between Human and Chimp Brains.http://www.icr.org/article/7067/372/

[৪] Stephen C. Meyer, Darwin’s Doubt, HarperCollins publishers, Seattle, WA, 2013, p-265.

[৫] Michael Behe, Edge of Evolution, FreePress, NY, 2008, p-142.

[৬] Gauger, A., Axe, D.. The Evolutionary Accessibility of New Enzymes Functions: A Case Study from the Biotin Pathway. BIO-Complexity, North America, 2011, apr. 2011. Available at: http://bio-complexity.org/ojs/index.php/main/article/view/BIO-C.2011.1.

ক্রেইগ ভেন্টার কোন কৃত্রিম প্রাণ তৈরী করেননি

এটা বেশ পুরোনো খবর। ক্রেইগ ভেন্টার নতুন কোন জীবিত কোষ তৈরী করেননি। তথাপি নাস্তিক ও বিবর্তনবাদীরা এখনও এই খবরকে তাদের ব্যাকিং দেয়ার জন্য ব্যাবহার করে যাচ্ছে। এর কারণ দুটো হতে পারে, এক তারা নিজেরাই যানে না যে প্রসেসটাতে কী করা হয়েছে অথবা তারা সাধারণ পাঠকদের এ বিষয়ে অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে নিজেদের ‘জ্ঞানের(?) অহংকার’ প্রদর্শন করে বেড়াচ্ছে।

আসুন আমরা দেখি ক্রেইগ ভেন্টার ও তার দল কী করলেন?

তারা একটি অলরেডি ‘লিভিং’ ব্যাকিটেরিয়া মাইকোপ্লাজমা মাইকয়েড এর কোষের নিউক্লিয়ার ম্যাটেরিয়াল এর ডাটা কালেক্ট করলেন। এবং সে অনুসারে (স্পেসিফিক পদ্ধতিতে) নিউক্লিউটাইড ক্যাসেট তৈরী করলেন। ইস্টের মাধ্যমে, ইস্টের অলরেডি বিল্ট ইন এসেমব্লি সিস্টেম, ব্যাবহার করে তাদেরকে এসেম্বল করলেন। এরপর সেই জিনোমটিকে ‘অলরেডি লিভিং’ ব্যাকটেরিয়া মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলাম এর মধ্যে ট্রান্সপ্ল্যান্ট করলেন। তবে তার আগে তারা একটি বুদ্ধি খাটালেন। তারা ক্যাপ্রিকোলাম এর নিজস্ব ‘রেস্ট্রিকশন এনজাইম’ এর জিনটাকে নক আউট করলেন। কেননা তারা জানতেন যে ব্যাকটেরিয়ার একটি বুদ্ধি আছে। তারা অন্য জেনেটিক ম্যাটেরিয়াল ঢোকালে সেটাকে তাদের রেস্ট্রিকশন এন্ডোনিউক্লিয়েজ এনজাইম দিয়ে কেটে হজম করে ফেলে।

এরপর যখন ঐ তথাকথিত ‘সিনথেটিক ডিএনএ’কে প্রবেশ করালেন, তখন
উক্ত ব্যাকটেরিয়া কোন প্রকার কথা না বলার সুযোগ পেয়ে সেটাকে নিজের করে নিল। (কেননা কথা বলার ব্যবস্থাতো আগেই বুদ্ধি করে দূর করে দেয়া হয়েছে।) প্রশ্ন হল তারা ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে নিউক্লিউটাইড-টাকে ঢোকালেন কিভাবে? আমার জানা মতে নিউক্লিয়িক এসিড দুভাবে ঢুকতে পারে। এক, যদি কোন ‘ফায’ ভাইরাস ব্যাকেটেরিয়াকে আক্রমণ করে নিজের জেনেটিক মেটেরিয়ালকে ব্যাকটেরিয়ার মেটেরিয়ালের সাথে যুক্ত করে লাইসোজেনিক phase এ চলে যায়। দুই, যদি ব্যাকটেরিয়ার বিল্ট ইন ‘ট্রান্সফরমেশন’ প্রসেস দ্বারা ‘নির্দিষ্ট কতগুলো শর্ত মেইনটেইন করা পরিবেশে’ দ্রবনের নিউক্লিয়িক এসিডকে আপন করে নেয়।

 

(সিনথেটিক কোষ সংশ্লেষ)

গুগলে একটু সার্চ দিয়ে কী পেলাম জানেন? নিচের Abstract-টি পড়ুন:

“As a step toward propagation of synthetic genomes, we completely replaced the genome of a bacterial cell with one from another species by transplanting a whole genome as naked DNA. Intact genomic DNA from Mycoplasma mycoides large colony (LC), virtually free of protein, was transplanted into Mycoplasma capricolum cells by ‘polyethylene glycol’–mediated ‘transformation’. Cells selected for tetracycline resistance, carried by the M. mycoides LC chromosome, contain the complete donor genome and are free of detectable recipient genomic sequences. These cells that result from genome transplantation are phenotypically identical to the M. mycoides LC donor strain as judged by several criteria.”

চলুন আমরা দেখি এরপর কী হল। ব্যাকটেরিয়া তার ‘নিজস্ব’ পূর্ব থেকেই বিদ্যমান আরএনএ পলিমারেজ ব্যবহার করে মেসেঞ্জার আরএনএ তৈরী করল। এরপর সেই মেসেঞ্জার আরএনএ উক্ত ব্যাকটেরিয়ার ‘নিজস্ব’রাইবোজম এর সাহায্যে প্রোটিন সংশ্লেষ করল। এখন উক্ত সংশ্লেষিত প্রোটিন কিন্তু মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকুলাম এর নয় বরং মাইকোপ্লাজমা মাইকয়েড এর প্রোটিন। (কারণ জিনগুলোত মাইকয়েডেরই) সুতরাং এর যে রেস্ট্রিকশন এন্ডোনিউক্লিয়েজ তা ‘রিসেপটর ব্যাকটেরিয়া’ মাইকোপ্লাজমা ক্যাপ্রিকোলাম এর ডিএনএ কে ফরেইন মনে করে কেটে ফেলল। এবং তৈরী হল তথাকথিক ‘কৃত্রিম কোষ’।

পুরো প্রসেসটা করল একদল ‘ইন্টেলিজেন্ট সায়েন্টিস্ট’। পুরো প্রসেসটাকেই জ্ঞানের আলোকে অলরেডি ‘জীবিত’ ইস্ট ও ব্যাকেটেরিয়ার মধ্যে করা হল, তাদেরই বিল্ট ইন সিস্টেম ব্যাবহার করে। একটি Successful transplantation এর মাধ্যমে আমরা একটি Successful Genetic Engineering দেখতে পেলাম। এ ব্যাপারে নিচের মন্তব্যটি প্রণিধানযোগ্য।

Dr Peter Dearden, Director of Genetics Otago comments:

“This paper represents a very significant step forward in engineering life. Venter’s group have been able to put a fully synthetic genome into a bacterial cell and get it to act as that cell’s genome. The technical skill required to get this to work is immense, and is the culmination of a long series of experiments that pioneered the technology to do this, as well as developing ways to prove that it had been done.”

“The experiment raises an interesting question, has Venter and his team created life? The answer is NO. Venter’s team is relying on the information in a natural genome. While the DNA strand that makes up the genome is synthetic and made in the lab, the information it contains comes from a species of bacterium; and it is the information that is important in a genome. Also Venter’s team needs a bacterial cell, one without a genome, to put their synthetic genome into. This cell, currently, can only be made by a living organism.”

“However, while Venter and his team haven’t created life, they have carried out a remarkable feat, and put us one further step on the road to completely re-engineering organisms for biotechnological purposes.”

এবং আমরা আবারও এই সুনিয়ন্ত্রিত ইন্টেলিজেন্স এর ব্যাবহার দেখে মূল ইন্টেলিজেন্ট স্বত্ত্বা ‘আল্লাহ’ যিনি জীবিত ব্যাকটেরিয়ার প্রাণ দান করেছেন তার পরিচয় পেলাম। এবং জানতে পারলাম কিভাবে তিনি আমাদেরকে সকল সৃষ্টির সেরা বানিয়েছেন।

এছাড়াও এখানে আমরা দেখতে পেলাম যে উক্ত বিজ্ঞানীরা ‘মৃত ব্যাকটেরিয়া’ ব্যাবহার করলেন না। আর পৃথক ভাবে Cell memberane, microtubules, DNA, RNA, Ribosome, DNA polymerase, RNA polymerase, Golgi appearatus, Endolplasmic reticulum তৈরী করে তাদেরকে একত্রিত করে ‘জীবিত’ করা হলে যাকে আমরা ‘কৃত্রিম প্রাণ’ বলতে পারতাম তার ধরা-ছোয়ার কাছেও তো এই প্রাণ কে যেতে দেখলাম না!!!

রেফারেন্স:

১.http://www.jcvi.org/cms/press/press-releases/full-text/article/first-self-replicating-synthetic-bacterial-cell-constructed-by-j-craig-venter-institute-researcher/ 
২. http://www.sciencemediacentre.co.nz/2010/05/21/experts-on-craig-venters-synthetic-biology-breakthrough/ 
৩. Genome Transplantation in Bacteria: Changing One Species to Another.http://www.sciencemag.org/content/317/5838/632.abstract
৪. USMLE step 1 immunology and microbiology (Kaplan Series)
৫. Lippincot’s illustrated Reviews of Biochemistry

আর্কিব্যাকটেরিয়া থেকে আর্কিয়া – বিবর্তনবাদীদের অস্বস্থি

পাইরোকক্কাস, একটি আর্কিয়ন

(Pyrococcus furiosus একটি আর্কিয়ন)

আর্কিয়া হল এক কোষী আনুবীক্ষুণীক জীবের একটি গ্রুপ (ডোমেইন)। এই ডোমেইনের সদস্য হল ব্যাকটেরিয়ার মত এক কোষী অনুজীব যাদের কোন নিউক্লিয়াস ও মেমব্রেন বাউন্ড অর্গ্যানিলিস নেই। প্রথমে উত্ত্বপ্ত ঝর্ণা, লবনাক্ত লেক এর মত কঠিন প্রাকৃতিক পরিবেশে পাওয়া যায় বলে এদেরকে ‘এক্সটারমোফাইল’ বলা হত। পরবর্তীতে এদেরকে মাটি, সমুদ্র, জলাভূমি, এমনকি মানুষের কোলনেও পাওয়া গেছে।

যতদিন পর্যন্ত আর্কিয়নের আণবিক গঠন জানা যায় নি ততদিন এদেরকে বলা হত আর্কিব্যাকটেরিয়া। এদেরকে প্রক্যারিওটের মধ্যে রাখা হয়েছিল। পরে যখন গবেষণার মধ্য দিয়ে দেখা গেল এরা ভিন্ন ধরণের স্ট্রাকচারাল মলিকিউল দিয়ে গঠিত তখন বিজ্ঞানিরা পরলেন বিপাকে। কেননা একদিকে এদের আনুবিক্ষনিক গঠন ব্যাকটেরিয়ার মত আবার অন্য দিকে এদের বেশ কিছু ‘জিন’ ও মেটাবলিক পাথওয়ে ইউক্যারিওটের মত। আবার,  এদেরকে বিশাল সংখ্যায় প্রকৃতিতে পাওয়া যাচ্ছে। ফলে বিজ্ঞানিদের আর্কিয়া নামক একটি সম্পূর্ণ ভিন্ন ডোমেইন-ই তৈরী করতে হল। উইকিপিডিয়াতে কথাগুলো এভাবে আছে:

‘In fact, the Archaea have an independent evolutionary history and show many differences in their biochemistry from other forms of life, and so they are now classified as a separate domain in the three-domain system.’

আসুন দেখি আর্কিয়ার সেল মেমব্রেনে কী পাওয়া গেল:

আর্কিয়া ও ব্যাকটেরিয়ার সেল মেমব্রেনের গঠন

Membrane structures.

Top, an archaeal phospholipid: 1, isoprene chains; 2, ether linkages; 3, L-glycerolmoiety; 4, phosphate group.

Middle, a bacterial or eukaryotic phospholipid: 5, fatty acid chains; 6, ester linkages; 7,. D-glycerol moiety; 8, phosphate group.

Bottom9, lipid bilayer of bacteria and eukaryotes; 10, lipid monolayer of some archaea.

প্রতিটি কোষের সেল মেমব্রেন গঠিত হয় ফসফোলিপিড বাইলেয়ার দিয়ে। এই ফসফোলিপিড অনু গুলো তৈরী হয় স্যাচুরেটেড ও আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি এসিডের লম্বা চেইনের সাথে ফসফাটিডিক এসিড এর এস্টার বন্ধন(-COO-) দিয়ে।

কিন্তু, আর্কিয়নের আনবিক গঠন পরীক্ষা করে দেখা গেল যে, এক্ষেত্রে ফসফোলিপিডের লিপিড অংশটুকু আইসোপ্রিনাইল এলিফেটিক জৈব অনু দিয়ে গঠিত। অর্থাৎ এর লিপিড অংশটুকু তে এমন কিছু জৈব অনু আছে যেগুলোর আবার সাইডব্রানচিং আছে। অন্যদিকে এই অনুগুলো ব্যাকটেরিয়ার মত ফসফাটিডিক এসিডের সাথে এস্টার বন্ধনে যুক্ত না হয়ে ইথার(-CO-) বন্ধন দিয়ে যুক্ত। (ইথার বন্ধন এস্টার বন্ধনের চেয়ে বেশী রেসিলিয়েন্ট)

ফসফাটিডিক এসিডের গঠনে একটি গ্লিসারিন অনুর তিনটি হাইড্রোক্সাইড অনুর মধ্যে একটি হাইড্রোক্সাইড ফসফেট এর সাথে সমযোজী বন্ধনে যুক্ত থাকে। প্রকৃতিতে গ্লিসারিনের দুটি ময়েটি পাওয়া যায়। একটি ডান-হাতী, আরেকটি বা-হাতী। আর্কিয়নের স্টেরিওকেমিস্ট্রি তে দেখা গেছে যে এদের গ্লিসারিন অনুটি প্রোক্যারিয়ট বা ইউক্যারিয়টের ঠিক উল্টো। (মিরর ইমেজ)

এ বিষয়গুলো দেখে বোঝা যায় যে আর্কিয়ন তার সেল মেমব্রেন তৈরীর জন্য সম্পূর্ণ ভিন্ন সেট অব এনজাইম্স ব্যাবহার করে। ভিন্ন এনজাইম অর্থ হল ভিন্ন জেনেটিক কোড।

ফলে বিজ্ঞানীরা, আর্কিয়নকে ব্যাকটেরিয়া বা প্রোটজোয়ার মাঝে না রেখে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি ডোমেইনে রাখতে বাধ্য হলেন। এবং যথারীতি বিবর্তনবাদীরা ‘ব্যাকটেরিয়া থেকে আর্কিব্যাকটেরিয়া ও তার থেকে প্রোটোজোয়া’ না বলে তিনটি ডোমেইনের একটি ‘কমন এনসেস্টর’ খুজতে লেগে গেলেন।smiley

আর্কিয়নের খাবারের বৈচিত্রও অন্যরকম। যারা ফটোট্রফ তারা নিজেদের খাদ্য নিজেরাই তৈরী করে সূর্যের আলোর সাহায্যে। যারা লিথোট্রফ তারা খায় অজৈব অনু। আর যারা অর্গেনোট্রফ তার খায় জৈব অনু।

গ্র্যান্ড প্রিজমেটিক স্প্রিং

গ্র্যান্ড প্রিজমেটিক স্প্রিং: এখানে থার্মোস্ট্যাবল আর্কিয়া পাওয়া যায়

কিছু আর্কিয়নের প্রজাতি বেঁচে থাকে ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার উপরে, তার প্রোটিনের কোন প্রকার ডিজেনারেশন ছাড়াই। আবার কিছু পাওয়া গেছে পোলার রিজিয়নে অত্যন্ত ঠান্ডার মধ্যে ফ্রিজিং হওয়া ছাড়াই।  কিছু বাঁচে এক্সট্রিম এসিডিক বা এলক্যালাইন পরিবেশে। কিছু আবার একেবারে কম লবণযুক্ত পানিতে অসমোসিসের শক এবজর্ব করার মত থিক সেল মেমব্রেন নিয়ে বাঁচে।

চিন্তা করুণ এদের প্রজাতির কত ভ্যারাইটি (সুবহানআল্লাহ)। এটা দেখে বিবর্তনবাদী জীববিজ্ঞানীরা এখন আর্কিয়নের ডিফারেন্ট ও ইনডিপেন্ডেন্ট ইভোলিউশনারী হিস্ট্রি রচনা করছেন। এজন্য ওনাদের ট্রিতে এখন তিনটি কান্ড। :-)

(চিন্তা করে দেখুন এককোষী অনুজীবের জন্য সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি ইতিহাস  )

ইভোলিউশনের ‘বিস্ময়’ মানুষ, যারা কিনা মাত্র ১.৫% শতাংশ জেনেটিক মেক আপে এপদের থেকে পৃথক(!), তারা আবার এই আর্কিয়নদের নিজেদের সুবিধাজনক স্থানে ব্যবহার শুরু করে দিয়েছেন(!)

যেমন,  মিথানোজেনিক ব্যাকটেরিয়া কে ব্যবহার করা হচ্ছে সুয়েজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট এ। আবারPyrococcus furiosus এর মত এক্সটারমোফাইলকে ব্যবহার করা হচ্ছে PCR reaction-এ। কারণ এরা যে ডিএনএ পলিমারেজ তৈরী করে তা থার্মস্ট্যাবল। PCR এ মানুষের ডিএনএ এর ডাবল হেলিক্স এর প্রতিটি হেলিক্স কে পৃথক করার জন্য দ্রবণের তাপমাত্রা ৯৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত ওঠানো হয়। এ তাপমাত্রায় প্রোক্যারিয়ট বা ইউক্যারিয়টের উক্ত এনজাইমটির টারশিয়ারি স্ট্রাকচার হারিয়ে ডি ন্যাচার হয়ে যাবে। অথচ Pyrococcus furiosus এর ডিএনএ পলিমারেজ এনজাইম এ তাপমাত্রায় ডিন্যাচার হয় না। (সুবহানআল্লাহ)

আসলে বিবর্তববাদীদের লক্ষ্য হল তাদের মত করে পৃথিবীর ইতিহাসকে সাজানো। (শুধুমাত্র উইকিপিডিয়া পড়লেও এ বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যায়) যদিও পৃথিবীর ইতিহাস ও জীব সমূহের গঠন বৈচিত্র এর উল্টোটাই সাক্ষ্য দিয়ে চলেছে।   

“(হে নবী; এ লোকদের জিজ্ঞেস কর) কোন সৃষ্টিকর্তা ছাড়া এরা কি নিজেরাই সৃষ্টি হয়েছে? না কি এরা নিজেরাই নিজেদের সৃষ্টিকর্তা? না কি পৃথিবী ও আসমানকে এরাই সৃষ্টি করেছে ? প্রকৃত ব্যাপার হলো, তারা বিশ্বাস করে না।” (সূরা তূর, আয়াত ৩৫,৩৬)

(অর্থাৎ এই লোকেরা আসল ও শ্বাশত কথার প্রতি প্রত্যয় স্থাপন করতেই প্রস্তুত নয়।)

 

রেফারেন্স:

১) http://en.wikipedia.org/wiki/Archaea

২) http://en.wikipedia.org/wiki/Cell_membrane

৩) Lippincot’s Illustrated Reviews of Biochemistry, Chapter: Protein structure and function

৪) Davidson’s Principles and Practice of Medicine, Chapter: Molecular and genetic factors in disease

৫) Tafhim Ebook

ছবির উৎস: গুগল ও উইকিপিডিয়া